‘পুতিন যুদ্ধকে বর্বরতার একটি নতুন মাত্রায় নিয়ে যাচ্ছেন’

মার্কিন আন্ডার সেক্রেটারি ফর পলিটিক্যাল অ্যাফেয়ার্স ভিক্টোরিয়া নুল্যান্ড দাবি করেছেন, রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন কিয়েভের সঙ্গে শান্তি আলোচনার ব্যাপারে আন্তরিক নন। তিনি পুতিনের বিরুদ্ধে ইউক্রেনের বিদ্যুৎ সরবরাহ ব্যবস্থায় হামলার মাধ্যমে যুদ্ধকে নৃশংসতার নতুন মাত্রায় নিয়ে যাওয়ার অভিযোগও করেছেন। ভিক্টোরিয়া নুল্যান্ড সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এসব অভিযোগ করেন। তিনি বলেন, পুতিন এই যুদ্ধ ইউক্রেনের প্রতিটি নাগরিকের ঘরে পৌঁছে দিয়েছেন। তিনি বিদ্যুৎ ও পানি বন্ধ করার চেষ্টা করছেন। যুদ্ধক্ষেত্রে তিনি যা করতে পারেননি তা অর্জনের চেষ্টা করছেন। কিয়েভ বলছে, তাপমাত্রা হিমাঙ্কের নিচে নেমে যাওয়ায় রাশিয়ার হামলার কারণে এক কোটিরও বেশি মানুষ বিদ্যুৎহীন। এদিকে, ক্রেমলিন অঙ্গীকার করেছে যে রাশিয়া পশ্চিমা-নির্ধারিত তেলের দাম এবং কীভাবে প্রতিক্রিয়া জানাবে তা “গ্রহণ করবে না”। G7, ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং অস্ট্রেলিয়া, বিশ্বের সাতটি শক্তিশালী অর্থনীতির গ্রুপ শুক্রবার সমুদ্রপথে রপ্তানি করা রাশিয়ান তেলের দাম ব্যারেল প্রতি ৬০ ডলার নির্ধারণ করেছে। তাদের লক্ষ্য তেল রপ্তানি থেকে রাশিয়ার আয় কমানো। এতে করে তারা রাশিয়ার অর্থনীতিকে দুর্বল করার চেষ্টা করছে এবং ইউক্রেন যুদ্ধে মস্কোর কাছে অর্থের যোগান কমানোর চেষ্টা করছে। আজ সোমবার থেকে এই নতুন তেলের মূল্য নিয়ন্ত্রণ কার্যকর হবে বলে আশা করা হচ্ছে। প্রতিক্রিয়ায়, ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ বলেছেন, মস্কো তেলের মূল্য নির্ধারণের প্রতিক্রিয়া জানাতে প্রস্তুতি নিচ্ছে। অন্যদিকে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থাগুলো মনে করছে, শীতকালে ধীরে ধীরে যুদ্ধ চলবে। মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থার পরিচালক এভ্রিল হেইনস বলেছেন, ইউক্রেনের বাহিনীর প্রতিরোধ কমছে এমন কোনো প্রমাণ নেই। পরবর্তী বসন্তে যেকোনো প্রতিরোধের জন্য উভয় পক্ষই পুনর্গঠিত হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *