প্রতিবেদন।রাজনৈতিক সহিংসতায় মারা গেছেন ৫৮ জন, ইউপি নির্বাচনে ৪৪ জন

বছরের প্রথম ৯ মাসে দেশে রাজনৈতিক সহিংসতার ৩৮৭টি ঘটনায় ৫৮ জন নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সঙ্গে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সংঘর্ষে ৪৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। এই ৪৮ জনের মধ্যে ৪৪ জন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকেন্দ্রিক সংঘর্ষে নিহত হয়েছেন; বাকি চারজন বিএনপি-পুলিশ সংঘর্ষে প্রাণ হারান।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ৯ মাসে রাজনৈতিক সহিংসতায় আহত হয়েছেন ৫ হাজার ৪০০ জন। এ ছাড়া সংঘর্ষে নিহতদের মধ্যে আওয়ামী লীগের ১৮ জন, বিএনপির ৬ জন এবং রাজনৈতিক পরিচয় পাওয়া যায়নি এমন ৩৪ জন। বিএনপি ও এর সহযোগী সংগঠনের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষের ৩৭টি ঘটনায় চারজন নিহত ও ৯২৯ জন আহত হয়েছেন।

রাজনৈতিক দলগুলোর অভ্যন্তরীণ কোন্দলে হতাহতের ঘটনা ঘটেছে উল্লেখ করে আসকে বলেন, আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনের অভ্যন্তরীণ কোন্দলে ৭৩টি সংঘর্ষ হয়েছে। এসব ঘটনায় আটজন নিহত ও ৮৯৫ জন আহত হয়েছেন। বিএনপির অভ্যন্তরীণ কোন্দলের ১৭টি ঘটনায় ১ জন নিহত ও ২১১ জন আহত হয়েছে। বিএনপি ও আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের মধ্যে ৮৪টি সংঘর্ষে একজন নিহত ও ১ হাজার ৫০০ জন আহত হয়েছেন।

গত ১০ ডিসেম্বর র‌্যাবের সাত শীর্ষ কর্মকর্তার ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞার পর ক্রসফায়ার সাময়িকভাবে বন্ধ হলেও এপ্রিলে র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে আরও একটি প্রাণহানির ঘটনা ঘটে। গত ৯ মাসে ১৫ জন বিচারবহির্ভূতভাবে এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হেফাজতে নিহত হয়েছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। এদের মধ্যে পুলিশের হাতে ৯ জন, র‌্যাবের হাতে ৫ জন এবং ডিবির হেফাজতে একজন মারা গেছেন ।

এই সময়ে বন্দুকযুদ্ধে তিনজন, শারীরিক নির্যাতনে সাতজন, হার্ট অ্যাটাকে একজন এবং অন্যান্য রোগে তিনজন মারা গেছেন। এ ছাড়া পুলিশ হেফাজতে আত্মহত্যার ঘটনাও ঘটেছে একটি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *