প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরের আগে প্রতিরক্ষা সংলাপ।ঢাকা সামরিক ঋণের আংশিক ব্যবহার করতে চায়

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফরের আগে বাংলাদেশ ও ভারত প্রতিরক্ষা সংলাপে বসছে। ১১ আগস্ট ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লিতে অনুষ্ঠিতব্য সংলাপে প্রতিরক্ষা খাতে দুই দেশের সম্পর্ক বাড়ানোর সুযোগ নিয়ে আলোচনা হবে। এছাড়া সংলাপে আলোচনার জন্য বাংলাদেশের প্রতিরক্ষা খাতে ভারতের দেওয়া লাইন অব ক্রেডিট (এলওসি) আংশিক ব্যবহার বা ঋণের বিষয়ে ঢাকা কর্তৃক সামরিক সরঞ্জামের একটি তালিকা তৈরি করা হয়েছে।

এই প্রতিরক্ষা সংলাপে নেতৃত্ব দেবেন সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের চিফ প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসার (পিএসও) লেফটেন্যান্ট জেনারেল ওয়াকার-উজ-জামান। ভারতের নেতৃত্বে থাকবেন সে দেশের সশস্ত্র বাহিনীর প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসার। সংলাপে ঋণের সরঞ্জাম সংগ্রহের পাশাপাশি দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতা, জঙ্গিবাদ দমন, যৌথ মহড়া, প্রশিক্ষণ ও সক্ষমতা বৃদ্ধির বিষয়ে আলোচনা হবে।

এদিকে, প্রধানমন্ত্রীর সফর উপলক্ষে ৪ আগস্ট পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠকে ভারত-বাংলাদেশ সম্পর্ক আরও বাড়ানোর ক্ষেত্রসহ অমীমাংসিত বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব (পূর্ব) মাশফি বিনতে শামসের সভাপতিত্বে বৈঠকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, আইন ও পানি সম্পদ, বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি), সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের (এএফডি) প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকে অংশ নেওয়া একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, ১১ আগস্ট দিল্লিতে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে প্রতিরক্ষা সংলাপের আগে ৮-১০ আগস্ট বেঙ্গালুরুতে দুই দেশের উচ্চপর্যায়ের সামরিক কর্মকর্তারা বৈঠক করবেন। এর আগে ২০২০ সালের ২ নভেম্বর বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে তৃতীয় প্রতিরক্ষা সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়। আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, ভারত বারবার বাংলাদেশকে তার ঋণ সামরিক খাতে ব্যবহার করার আহ্বান জানিয়েছে। এ নিয়ে নিজেদের মধ্যে আলোচনাও করেছে বাংলাদেশ। এর পাশাপাশি প্রতিরক্ষা সংলাপকে সামনে রেখে চাহিদা অনুযায়ী পণ্যের তালিকা তৈরি করেছে বাংলাদেশ।

২০২১ সালের ডিসেম্বরে, ভারতের তৎকালীন পররাষ্ট্র সচিব হর্ষবর্ধন শ্রিংলা একটি সংবাদ সম্মেলনে বলেছিলেন যে ভারত ঋণের আওতায় বাংলাদেশে সরবরাহের জন্য বেশ কয়েকটি পণ্য বেছে নিয়েছে।

বাংলাদেশ ভারত থেকে কী কী পণ্য সংগ্রহ করবে জানতে চাইলে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, সশস্ত্র বাহিনী বিভাগ একটি তালিকা তৈরি করেছে। তবে বেশিরভাগই সামরিক কর্মী এবং সরঞ্জাম পরিবহনের জন্য যানবাহন। এর মধ্যে রয়েছে APC এবং বড় ট্রাক। আধিকারিক বলেছেন যে সামরিক এলওসির আংশিক ব্যবহার নিয়ে প্রতিরক্ষা সংলাপে আলোচনা করা হবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আমন্ত্রণে ২০১৯ সালে সর্বশেষ ভারত সফর করেছিলেন। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা নিশ্চিত করেছেন যে তিনি নরেন্দ্র মোদির আমন্ত্রণে ৬ সেপ্টেম্বর ভারত সফর করবেন। এই সফরের আগে ঢাকা ও দিল্লি দুই দেশের সব ক্ষেত্রে সহযোগিতার সম্ভাব্য ক্ষেত্র খতিয়ে দেখছে।

২০১৭ সালে, বাংলাদেশ এবং ভারত প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম কেনার জন্য $ ৫০০ মিলিয়ন  চুক্তি স্বাক্ষর করে। প্রতিরক্ষা খাতেও দুই দেশের মধ্যে তিনটি চুক্তি রয়েছে। এগুলো হলো প্রতিরক্ষা খাতে পারস্পরিক সহযোগিতা, জাতীয় নিরাপত্তার ক্ষেত্রে পারস্পরিক সহযোগিতা, দুই দেশের ন্যাশনাল ডিফেন্স কলেজের মধ্যে উন্নয়ন ও কৌশলগত শিক্ষা এবং প্রতিরক্ষা স্টাফ কলেজ পর্যায়ে সামরিক খাতে কৌশলগত ও অপারেশনাল শিক্ষা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *