আগামী ৬ আগস্ট ঢাকা আসছেন চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ঢাকায় আসছেন চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই। আগামী ৬ আগস্ট তার ঢাকায় আসার কথা রয়েছে।পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব (পূর্ব) মাশফি বিনতে শামস। তিনি  বলেন, ৬ আগস্ট সকাল সাড়ে এগারোটার দিকে ঢাকায় থাকবেন।

সূত্র জানায়, চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী দুই দিনের সফরে ঢাকা আসছেন। তার সফর শেষ হয়েছে। বৃহস্পতিবার থেকে ৬ আগস্ট পর্যন্ত পররাষ্ট্রমন্ত্রী কম্বোডিয়ায় একটি সম্মেলনে রয়েছেন। এ কে আব্দুল মোমেন। চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ঢাকা সফরকে কেন্দ্র করে ৬ আগস্ট রাত সাড়ে ১০টায় ঢাকায় পৌঁছাবেন তিনি। ফলে বিমানবন্দরে চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে স্বাগত জানাতে পারছেন না তিনি। চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ইকে ঢাকায় স্বাগত জানাবেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী। শাহরিয়ার আলম। আর আগামী ৭ আগস্ট বাংলাদেশ ও চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে।

চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সফরকালে পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক ছাড়াও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন। ওয়াং ইয়ের আগামী ৭ আগস্ট ঢাকা ত্যাগ করার কথা রয়েছে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, বর্তমান বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সফর অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। একদিকে রাশিয়া-ইউক্রেন সংকট, অন্যদিকে তাইওয়ান নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যে নতুন করে উত্তেজনা চলছে। যদিও বৈঠকের আলোচ্যসূচিতে দ্বিপাক্ষিক ও আন্তর্জাতিক বিষয় রয়েছে, তবে আলোচনাটি আন্তর্জাতিক ভূ-রাজনৈতিক ইস্যুতে ছেয়ে যাবে।

সূত্র জানায়, বৈঠকে বৈশ্বিক ইস্যুতে বাংলাদেশের সমর্থন চাইবে চীন। এক্ষেত্রে বাংলাদেশ তার পররাষ্ট্রনীতি অনুসরণ করবে এবং যথাসম্ভব চীনের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করবে। আর তার সঙ্গে রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে কথা বলবে বাংলাদেশ। চীনের মধ্যস্থতায় চীন, বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের মধ্যে ত্রিপক্ষীয় বৈঠক করে যত দ্রুত সম্ভব রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে জোর দেবে ঢাকা। বিশেষ করে, আসন্ন জাতীয় নির্বাচনের আগে যাচাই-বাছাই করা ১৫০০ রোহিঙ্গাকে ফিরিয়ে নিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া শুরু করতে চায় বাংলাদেশ। এছাড়া চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সফরের সময় স্বাক্ষরিত ২৭টি চুক্তির অগ্রগতি পর্যালোচনা করবে দুই দেশ। আর দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের সার্বিক বিষয় নিয়ে বৈঠকে আলোচনা হবে।

জানা গেছে, চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এশিয়ার কয়েকটি দেশে সফরে গেছেন। 28 জুলাই উজবেকিস্তানের সাংহাই সহযোগিতা সংস্থা SCO-এর পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকের মাধ্যমে এই সফর শুরু হয়। আরও দুটি দেশ সফর শেষে ওয়াং ই ঢাকায় আসছেন। বাংলাদেশ সফর শেষে তার মঙ্গোলিয়া সফরের কথা রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *