আবার ‘বন্দুকযুদ্ধ’ কেন?।বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই এড়ানো সম্ভব: নুর খান লিটন

যুক্তরাষ্ট্র র‌্যাব এবং তার বর্তমান ও সাবেক কিছু কর্মকর্তার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের পর থেকে চার মাস ধরে কোনো ‘বন্দুকযুদ্ধ’ হয়নি। এটি অনেকের মনে আশা জাগিয়েছিল যে এটি আর হবে না। প্রসঙ্গত, শনিবার রাতে কুমিল্লায় সাংবাদিক মহিউদ্দিন সরকার হত্যা মামলার প্রধান আসামি মো. র‌্যাবের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন রাজু। মানবাধিকার কর্মীরা বলছেন, বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড বা বন্দুকযুদ্ধকে যদি ‘ব্যাধি’ হিসেবে দেখা হয়, তাহলে মূল কারণ অপরিবর্তিত থাকে। যেসব হত্যাকাণ্ড ঘটছে এবং হতে দেওয়া হচ্ছে তার অন্তর্নিহিত কারণগুলোকে প্রাতিষ্ঠানিকভাবে রক্ষা করা হচ্ছে। নিষেধাজ্ঞার চাপে সাময়িক বিরতি ছিল। তবে এটি পুনরুত্থিত হওয়া স্বাভাবিক ছিল।

বিশিষ্ট ব্যক্তিরা পরামর্শ দেন যে রাষ্ট্র যদি বন্দুকযুদ্ধ এবং গুমের ঘটনার সঠিক তদন্ত পরিচালনা করে, দায়ীদের চিহ্নিত করে এবং তাদের বিচারের আওতায় আনে, তাহলে পরিস্থিতির উন্নতি হতে পারে। উল্টো র‌্যাব যথারীতি বলছে, আত্মরক্ষার্থে তারা গুলি চালাতে বাধ্য হয়েছে।

মানবাধিকার সংগঠনগুলোর মতে, বাংলাদেশে ২০১৯ থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত তিন বছরে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডে ৫৯১ জনকে হত্যা করা হয়েছে। এর মধ্যে শুধুমাত্র গত বছরই ৮০ জনকে হত্যা করা হয়েছে। যাইহোক, গত বছরের ডিসেম্বরে, “গুরুতর মানবাধিকার লঙ্ঘনে” জড়িত থাকার অভিযোগে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র র‌্যাব এবং এর ছয় কর্মকর্তার উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। এরপর বন্দুকযুদ্ধ ও অনুরূপ ঘটনা বন্ধ হয়ে যায়।

ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, বাংলাদেশে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের কারণ ও কারণের প্রকৃত পরিবর্তন হয়নি। যুক্তরাষ্ট্রের পদক্ষেপে একটা চাপ হয়ত পড়েছে।

তিনি বলেন তার স্বীকারোক্তি নির্যাতনের মাধ্যমে প্রাপ্ত হয়েছিল, এবং তার স্বীকারোক্তি নির্যাতনের মাধ্যমে প্রাপ্ত হয়েছিল। কিন্তু সেটা হচ্ছে না। যারা এসব ঘটনার শিকার হন, যত বড় অপরাধীই হোন না কেন, তাদের আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ থাকে। তা থেকে বঞ্চিত, হত্যা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। বিদেশীরা কি বলে বা কি বলে না তাতে আমাদের কিছু যায় আসে না। বিষয়টি আমাদের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নজরে আনতে হবে।

ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, এ ধরনের ঘটনার জন্য যে ব্যাখ্যা দেওয়া হয়েছে তা প্রচলিত। এটা কারো কাছে গ্রহণযোগ্য নয়; যাঁরা ব্যাখ্যা করছেন, তাঁরাও জানেন। এই ঘটনাগুলো কোনো ব্যক্তি বা অপরাধী বা অভিযুক্তের ন্যায়বিচারের অধিকার প্রতিষ্ঠায় ব্যর্থতার পরিচায়ক। অপরাধী যত বড়ই হোক না কেন, বিচার প্রক্রিয়ার মাধ্যমেই ব্যবস্থা নিতে হবে। বিনা বিচারে কাউকে হত্যা করার কোনো এখতিয়ার আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে দেওয়া হয়নি।

মানবাধিকারকর্মী নূর খান লিটন বলেন, বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড আগেও বন্ধ হয়েছে। মেজর সিনহা ২০২০ সালে কক্সবাজারে অবসরে যান। রাশেদ খান নিহত হওয়ার পর কয়েকদিন বিরতি ছিল। র‌্যাব ও সেনা কর্মকর্তাদের ওপর যুক্তরাষ্ট্র নিষেধাজ্ঞা আরোপের পর মাঝেমধ্যে এ ধরনের ঘটনা বন্ধ হয়ে যায়। অনেকেই ভেবেছিলেন এমনটা আর হবে না। কিন্তু আমি ব্যক্তিগতভাবে এখনো তেমন কোনো শক্তিশালী বার্তা দেখি না। সরকারের তেমন কোনো উদ্যোগ নেই। ফলে আস্থার সুযোগ কম থাকে।

“আমি মনে করি বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই বন্দুকযুদ্ধ এড়ানো সম্ভব ছিল,” তিনি বলেছিলেন। এসব ঘটনার নির্বাহী তদন্ত কতটা স্বাধীন তা নিয়ে জনমনে প্রশ্ন রয়েছে।

এটা কি এড়ানো সম্ভব ছিল? শনিবার কুমিল্লার আদর্শ সদর উপজেলার গোলাবাড়ি এলাকায় ভারতীয় সীমান্তের কাছে সর্বশেষ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। পরে র‌্যাব-১১ এর ক্রাইম প্রিভেনশন কোম্পানি-২ এর অধিনায়ক মেজর মোহাম্মদ সাকিব হোসেন ঘটনার বর্ণনা দেন। গতকাল মানবাধিকার কর্মীদের উদ্ধৃতি দিয়ে তাকে জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল যে বন্দুকযুদ্ধ এড়ানো সম্ভব কিনা। জবাবে তিনি বলেন, ঘটনাস্থলে কারা ছিল তা আমরা জানতাম না। আমি শুধু জানতাম যে সন্ত্রাসীদের একটি দল ছিল। তারা নাশকতা করতে পারে জানলেই তাদের ঘিরে ফেলা হয়। এরপর তারা গুলি চালায়। এখন আমরা আত্মরক্ষায় গুলি করব। গুলি চালানোর সময় আপনি এটা ভাবতে পারবেন না।

ভারতে খুন? : আমাদের কুমিল্লা প্রতিনিধি জানান, সাংবাদিক মহিউদ্দিন সরকার হত্যা মামলায় ঘটনাস্থল হিসেবে হায়দ্রাবাদকে উল্লেখ করা হলেও বাস্তবে তাকে বাংলাদেশে হত্যা করা হয়নি।

হায়দ্রাবাদ এলাকার কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শী জানান, গত বুধবার (১৩ এপ্রিল) রাতে তিন সহযোগীকে নিয়ে মোটরসাইকেলে করে প্রথমে হায়দরাবাদ এলাকায় আসেন মহিউদ্দিন। পরে তাদের সীমান্তের ওপারের নাগর গ্রামে নিয়ে যাওয়া হয়। মহিউদ্দিনকে প্রথমে রাজুর বাহিনী আক্রমণ করে এবং পরে গুলি করে হত্যা করে এবং তার লাশ জব্দ করে সীমান্ত পিলার থেকে কয়েক গজ দূরে নিয়ে যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *